বিয়ে পাগলি

বিয়ে পাগলি – Bangla Love Story

Posted by

বিয়ে পাগলি:

আজ আমরা বিয়ে পাগলি বফ আর তার কাহিনী পড়তে যাচ্ছি ।

নিজের বয়ফ্রেন্ডকে যখন নিজের নতুন টিচার হিসেবে দেখলাম‌ তখন মনটা চাইছিলো গিয়ে কচু গাছের লগে গলায় দড়ি দেই । টিচার তাড়াতে এত কিছু করলাম সেখানে। কিন্তু কথা হলো গিয়ে এইটা এখানে আসল কেমনে?

আমি একবার আমার আম্মুর দিকে আরেকবার আরেকবার বলদা বয়ফ্রেন্ডের দিকে তাকাচ্ছি । বফ আমার কাচুমাচু মুখ করে দাড়িয়ে আছে আর আমার আম্মা বিশ্ব জয়ের হাসি দিচ্ছেন । তখনই বুঝলাম যে এই কাম আমার আম্মা ছাড়া কেউ করতেই পারে না ।

আমার আম্মু অনেক বুদ্ধমতি মহিলা । এসব এক্সট্রা অরডিনারী প্লান উনি ছাড়া কেউ করতেই পারে না । কিন্তু আম্মু কি‌ করতে চাইল মাথায় আসল না । জিবনে এই প্রথম মা দেখলাম যে তার মেয়ের বয়ফ্রেন্ডকেই তার টিচার হিসাবে নিয়োগ দেয় …..
.
আসলে ঘটনা হলো পড়ালেখা আমার কোনোকালেই ভালো লাগত না । স্বপ্ন ছিল বিয়ে করে সংসার করার । কিন্তু সেই স্বপ্নে সব সময় পানি পড়ত । সারাজিবন আমার সাথে যুদ্ধ করেই আমাকে পড়াতে হতো । কোনো রকম টেনেটুনে ইন্টার পর্যন্ত আসলাম । কিন্তু এখন আর পাশই করতে পারতেছি না । যাই পড়ি না কেন বছর বছর সেই ফেইলই হয় ।

আসলে কখনো মন দিয়ে পড়তামই না পাশ হবে কেমনে । পরীক্ষার খাতায় পড়ার জাগায় গান লিখে দিয়ে আসতাম কারণ যেই প্রশ্ন আসত সেটার আগা মাথা আমি কখনো খুজেই পাইতাম না ।তাই মাঝে মাঝে আকারে ইঙ্গিতে আম্মুকে বলতাম যে আমাকে যেন বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয় ।

আর আমি ও ছাড়া পেতে যাই এই‌ পড়ালেখা থেকে । কিন্তু আম্মুর উত্তর ছিল আমি এখনো ছোট আমাকে এখন বিয়ে দেওয়া যাবে না । ব্যাস আর কি আমার বিয়ের স্বপ্ন আমার স্বপ্ন থেকে গেল ‌। আর মাথার উপর একগাধা পড়ালেখার চাপ…….
.
যাই হোক অবশেষে‌ ইন্টারে আমার একটা বয়ফ্রেন্ড জুটল । একটা কথা হলো কি আমি পড়ালেখায় ভালো না হলেও দেখতে মাশাআল্লাহ অনেক সুন্দরি । সেই‌ সুবাধে অনেক প্রপোজই পাইতাম । শেষে গিয়ে আমার বফ মানে সূর্যের প্রপোজ একসেপ্ট করলাম ।
.
আমি যে এত ভাল বফ পাবো সেটা কখনো কল্পনাই করিনি । কারণ অামি যেমন পড়ালেখায় গোল্লা লেভেলের স্টুডেন্ট কিন্তু আমার বফ পড়ায় অনেক টপ লেভেলের স্টুডেন্ট । শুধু তাই নয় এখন একটা মাল্টি ন্যাশনাল কম্পানিতে খুব ভালো পোষ্টে জব করে । তবে কথা হলো গিয়ে এতদিন তো এমনিতেই পড়ালেখা হচ্ছিল না এখন পুরাটাই গোল্লায় গেল ।

…………… বিয়ে পাগলি – Bangla Love Story …………….

যেই বছর প্রেম হলো সেই বছর থেকেই ফেইল হচ্ছে । প্রথম যখন ইন্টারে ফেইল করলাম সূর্য বলল ব্যাপার না পরের বার হবে । কিন্তু এরপর তো পাশ কারে বলে ভুলেই গেলাম । এইদিকে আমার বাবা মায়ে ঘোর টেনশন আমার পড়ালেখা নিয়া আর এইদিকে আমার টেনশন সূর্যকে নিয়ে ।

কারণ সূর্য বেচারা আমার জন্য অপেক্ষা করতে করতে বুড়া হয়ে যাচ্ছে । আমি ও বুঝলাম না বেচারা রাজপুত্রের মতো চেহারা । আমার থেকেও ‌ভালো মেয়েকে বউ হিসেবে পেতে পারত । কিন্তু কিসের জন্য যে আমার জন্য অপেক্ষা করেছিল কে জানে । একদিন সূর্যের জরুরি তলব । আমি গেলাম । যাওয়ার পরই সূর্য বলল

আচ্ছা আমার কি এই জিবনে আর বিয়ে করা হবে না । আমার বাসা থেকে কিন্তু বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছে
আহারে বেচারার বিয়ে করার কত শখ । একদম আমার মতো বিয়ে পাগল । যাইহোক আমি বললাম আচ্ছা আমি দেখতেছি কি করা যায় ।

সেই ‌প্রথম আমি আম্মুরে বললাম
আম্মু আমারে কি বিয়া দিবা না ?

কথাটা বলা মাত্রই যেভাবে তাকাইলো আমার আর কথা বের হয় না আমি সোজা নিজের ঘরে চলে আসলাম । ডিসিশন নিলাম ‌যে না আর পড়ালেখা করব না । আরো ফেইল করতে থাকব যাতে তারা অতিষ্ট হয়ে পড়ালেখা বাদ দিয়ে আমাকে বিয়ে দিয়ে দেয় ।

সেই মত কাজ করতে থাকলাম । আম্মুরা একটার পর একটা টিচার রাখতেছে আর আমি একটার পর টিচার তাড়িয়ে দিচ্ছিলাম । এমন অবস্থা যে কোনো টিচার আমাকে পাঁচ দিনের বেশী পড়াইতেই পারত না …..

আমার বেশ ভালোই‌ লাগছিলো টিচার তাড়াতে । মাঝে মাঝে মনে হয় আমার একটা বই ‌লেখা উচিত টিচার তাড়ানো থেরাপি নিয়ে । এতে আমার মতো অবলা মানুষগুলো পড়া থেকে মুক্তি পাবে । মনে মনে ভাবতেই ‌বেশ হাসি পাইত । তারপর থেকে আমার জন্য আর টিচার পাওয়া যাইত না ।

কারণ ততদিনে আমাদের এলাকার সব টিচারই আমার জন্য রাখা হয়ে গেছিল । আর সবার যে অবস্থা করে ছেড়েছি । এরপর আর কে পড়াবে । আমি ও‌অনেক খুশি হইলাম‌ যে যাক অবশেষে আমার প্লান সাকশেষফুল । এইবার আমাকে বিয়ে না দিয়ে আর কোথায় যাবে । এই ‌খুশিতে আমি গিয়ে আমার সূর্যকে কল দিলাম।
.
সূর্য বিয়ের প্রস্তুতি শুরু করে দেও । আর খুব তাড়াতাড়ি বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আস ?
আজমির কথায় বিষ্ময়ের চরম পর্যায়ে মানে এসব কি বলছ ? আমি তো বিশ্বাসই করতে পারছি না !
আরে যা বলছি সত্যিই বলছি ।
.
আরো কিছু বলতে যাবো তার আগেই দেখলাম আমার দরজার বাহির থেকে কারো ছায়া দেখা গেল । বুঝতেই পারছিলাম এইটা আমার গোয়েন্দা মা ছাড়া কেউ হতেই পারে না । তাই তাড়াতাড়ি কথা গুড়ি বললাম
হ্যাঁ, শিলা আমি যাবো কালকে কলেজে ঠিকাছে এখন রাখি
.
বলেই দ্রুত ফোন রেখে দিলাম । ভেবেছিলাম কাহিনী এখানেই শেষ । কিন্তু আজকে সকালে ঘুম থেকে উঠেই এই‌কান্ড । আমার বফ আমার টিচার হিসেবে আমার বাসায় । ঘটনা কি হলো বুঝার জন্য ইশারায় জিজ্ঞাসা করতেই আম্মু বলল

…………… বিয়ে পাগলি – Bangla Love Story …………….

তা বাবা জিবন এখন থেকে আমার মেয়ের দায়িত্ব তোমার । তবে ভেবোনা আমি আমার মেয়েকে তোমার হাতে তুলে দিলাম । আমার মেয়েকে তোমার হাতে তখনই তুলে দিবো যখন ও গ্রাজুয়েশন কম্প্লিট করতে পারবে । তাই মন দিয়ে পড়াতে থাকো ঠিকাছে
.
সূর্যকে বলার পর আম্মু আমার দিকে তাকিয়ে বলল
আর সোনা মামনি তুমি যদি চলো ডালে ডালে আমি চলি পাতায় পাতায় । তাই আর কোনো প্লান না করে সুন্দর করে পড়তে বসে যাও । নাহলে এই জিবনে আর তোমার বিয়ের স্বপ্ন পূরন হবে না তোমার বফের সাথে …..
.
এই‌ কথায় সূর্যের মুখটা জাষ্ট দেখার মতো হয়েছে । যেন বেচারা এখনই কেঁদে দিবে ।আর আমি টাস্কিত আম্মুর কথায় । আম্মু যেতেই‌ আমি সূর্যের কলার ধরে বললাম …..
ওই‌ বলদা তুই এইখানে কি করিস । আর আমার টিচার হয়ে আসার কাহিনী কি ?

কি‌ আর কাহিনী । সব আমার পোড়া কপাল‌। কালকে রাতে তুমি ফোন দিয়ে যখন বললে যে বিয়ে প্রস্তাব নিয়ে আসতে তখন আমি কিছুই বুঝতে পারিনি । তবে যখন রাত বারোটায় তোমার আম্মু ফোন দিয়া বলল যে আজকে যেন তোমাদের বাসায় আসি বিয়ের কথা বলবে ।

তখন আমি সোনায় সোহাগা । তখন তুমি বললে আর তার কিছুক্ষন পরই তোমার আম্মু বলল । ভাবলাম হয়তো এইবার বাসা থেকে তোমাকে বিয়ে দেওয়ার জন্য রেডি । আর তুমি তোমার ফ্যামিলিকে সব বলেছ । আমি ও নাচতে নাচতে চলে এলাম তোমার বাসায় । আমি কি জানতাম নাকি ামার জন্য এতবড় একটা আছোলা বাঁশ নিয়ে বসে আছে তোমার আম্মা ।
.
এই কথায় আমার মাথায় হাত । তারমানে আম্মাজান কালকে রাতে সব শুনে আমি ঘুমানোর পরই এই প্লান করেছে । আমার আগেই বুঝা উচিত ছিল আমার আম্মু এত সহজে আমাকে পড়ালেখা ছাড়তে দিবে না ।কি চলটাই না দিলো ভাবা যায় এগুলা । এসব ভাবতে ভাবতে আমি বুঝতে পারলাম কেউ আমার পা ধরে আছে আমি নিচে তাকাতেই সূর্য বলে উঠল …..

বোন তোর পায় পড়ি এইবার অন্তত পাশ করে যাস । নাহলে এই জন্মে আর বিয়ে হবে না …..
এইবার আমিও কান্না করেই বললাম আল্লাহ এইবারের মতো আমাকে পাশ করিয়ে দিয়েন । ও মাগো আমার মনে হয় এই জিবনে আর বিয়ের স্বপ্ন পূরন হবে না । সেই আবার ও ‌বসে গেলাম পড়তে । আমি কান্না করতে করতে পড়তেছি আর আমার বফ কান্না করতে করতে পড়াচ্ছে ..‌……‌‌

…………… বিয়ে পাগলি – Bangla Love Story …………….

আমাদের আরো গল্প:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *