Breakup

Breakup – Bangla Love Story

Posted by

Breakup:

Breakup হওয়ার পর কেমন যে অনুভূতি হয় ।সবাই পড়ুন।
হঠাৎ একটা মেসেজ টোনে ঘুম ভেঙে গেল দ্বীপের ।

কলেজ থেকে ফিরে ক্লান্ত চোখে ঘুমটা সবে জাকিয়ে এসেছিল, বিরক্তি মুখে আড়মোড়া ভাঙতে ভাঙতে অলস হাতে ফোনটা হাতে নিয়ে মেসেজটা দেখতেই একরকম লাফিয়ে উঠল সে।

সৌমিলির দীর্ঘ একটা মেসেজ, “আমি চলে যাচ্ছি তোর জীবন থেকে সারাজীবনের মতো, তুই খুব ব্যস্ত,আমার জন্যে একদম সময় নেই,অনেকবার বলেছিস শুধরবি, শুধরাসনি, নাহ!

আমি আর পারছিনা, থেকেও না থাকার মতো থেকে আমায় আর কষ্ট দিস না, প্লিজ আমায় আমার মতো থাকতে দে, তুই তোর মতো থাক,জানিস তো আমি প্রথমের দ্বীপ কে খুব মিস করি, কোথায় যে হারিয়ে গেল সে,অনেক মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছি,আর পারছিনা রে!

আমি সরে যাচ্ছি তোর জীবন থেকে,আমায় কোনো Msg বা Call করে কন্টাক্ট করার চেষ্টা করবি না!
গুড বাই ”  মেসেজটা পরেই ঘামতে শুরু করল দ্বীপ ।

মনটায় যেন কেউ পটাশিয়াম সায়ানাইড ছড়িয়ে দিল ,চারদিকে আধার দেখল সে,আলোয় ঝলমল ঘরটায় কেউ যেন হঠাৎ দুম করে সুইচ অফ করে দিল।
সে চিৎকার করে উঠল, “নাহ!
………Breakup – Bangla Love Story………..

কিছুতেই  না.” এরকম ভয়ানক মেসেজ তো সৌমিলি কখনো করে না ,না রাগ অভিমানেও না ,ব্যাপারটা ঘোরতর সিরিয়াস মনে হল দ্বীপের ।

বুক টা হুহু করে উঠল ।

সৌমিলির নাম্বারে ডায়াল করল সে, ঘর্মাক্ত হাতে ফোনটা কানে ধরল,বুকটা বড্ড ধুকপুক করছে আজ, যেন এক আলোকবর্ষ পরে কল করছে সে। ফোনের অপরপ্রান্ত  থেকে Busy Tone শুনিয়ে ফোনটা কেটে গেল, আবার ফোন করল সে, নাহ!

সেই busy Tone!
এবার সৌমিলির আর একটা নম্বরে ডায়াল করল সে, সেখানেও Busy tone ..।

উফঃ! আচ্ছা জ্বালা তো .. বলে কপাল চাপড়াল দ্বীপ।
হঠাৎ খেয়াল পড়ল, যখনই রাগ-অভিমান বা খুনসুটি হতো,সৌমিলি তার নম্বর টা ব্লক করে দিত।

অনেক কষ্ট করে মানানোর পর আনব্লক করত সৌমিলি । সৌমিলির রাগটা বড্ড বেশী, কথায় কথায় রাগ করে সে,বড্ড অভিমানী.. কিন্তু দ্বীপ কে খুব ভালোবাসে, প্রচন্ড খেয়াল রাখে সে,সেই সকাল থেকে রাত,সারাদিন।

মাধ্যম সেই Text বা ফোনকল ।
দ্বীপ বুঝল ওর নম্বর টা ব্লক করে দিয়েছে সে ।

দ্বীপের বুকের ব্যাথা টা গভীর হলো,বড্ড অসহায় লাগে যখন যখন সৌমিলি তাকে ব্লক করে দেয় ,এটাই তো একমাত্র মাধ্যম,এটা না থাকলে তো দেখাও পর্যন্ত করা যায় না , না না কিছুতেই না !

সৌমিলি কে কিছুতেই যেতে দেবে না সে, সৌমিলি কে ছাড়া তার একদিনও থাকা দায় ।
সকালের ঘুমভাঙ্গানো থেকে শুরু করে রাতে ঘুমপাড়ানো সবকিছুতেই সৌমিলি ।

প্রায় দুবছর হতে চলেছে তাদের সম্পর্কের,প্রথম দিকে দ্বীপের পুরো সময়টাই সৌমিলি পেত, তারপর ধীরে ধীরে যা হয় আর কি! ভালোবাসার ফ্যান্টাসি কেটে গেলে বাস্তবতার কষাঘাত এসে আছড়ে পরে, .. সবকিছু ধীরে ধীরে ম্রিয়মান হয়,সেই স্বপ্ন,আদর,ভালোবাসা, কল্পনাগুলোতে একঘেয়েমীর মরিচা পড়তে শুরু করে ।কিন্তু কিছু মানুষের মনে সেই প্রথমের ভালোবাসার মানুষটি বেঁচে থাকলেই হয় সমস্যা, সেই একঘেয়েমিতে জরাজীর্ণ মানুষটির মধ্যে কিছুতেই পুরাতন মানুষটিকে খুঁজে পায়না.. .. ট্রেনে করে রোজ রোজ জার্নি ,কলেজ-কাচারী,রোজ রোজ Assignments,ফেসবুক,হোয়াটসআপ, COC ইত্যাদির মধ্যে সৌমিলির জন্যে সময়টা কমে এসেছিল ঠিকই,তাই বলে  দ্বীপের কষ্টটা বেড়ে গেল ,সে দৃঢ় কণ্ঠে ঘোষণা করল,”নাহ! কিছুতেই না!

কিছুতেই যেতে দেব না ওকে”… সে ঘড়িতে চোখ বুলিয়ে দেখল ৮.৩০,এখনো মোড়ের মাথার দোকানটা খোলা আছে, সে চটজলদি উঠে জিনসের উপর একটা ফতুয়া গলিয়ে ছুটল।

মোড়ের মাথার মুদি দোকান সঙ্গে PCO/STD বুথ ।দ্বীপ সযত্নে  অস্থির আঙুলে সৌমিলির নম্বরটা ডায়াল করল, অনেকখন রিং হয়ে যাওয়ার পরও কেউ ধরলো না, দ্বীপের কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমেছে,বড্ড টেনশন হচ্ছে তার।
………Breakup – Bangla Love Story………..

সে আবার সৌমিলির নম্বরটা ডায়াল করল,অনেক্ষন রিং হওয়ার পর একজন ফোনটা ধরল,শান্ত-ম্লান নারীকণ্ঠে,বলল ,”হ্যালো ! কে বলছেন?” ..  আজ সৌমিলির কন্ঠটা শুনে বড্ড মিষ্টি লাগল দ্বীপের,তার হৃদস্পন্দনের ধুকপুকোনিটা তীব্র হল, সেই পুরোনো দিনের কথা মনে পরল,তারা যখন ঘন্টার পর ঘন্টা ফোনে কথা বলে কাটাত,কথাই যেন শেষ হতো না .. আর আজ !

যেন একটা কর্তব্যের দায় সারা হয় ..   .. কেন আজ সেই প্রথম দিনের মতো অনুভব হচ্ছে তার, যখন তিন-চারমাস ফেসবুকে বন্ধুত্বের পর হঠাৎ সৌমিলির কাছে নম্বর চেয়েছিল সে ..।

সেই নম্বর পেয়ে বিশ্ব জয়ের মতো আনন্দ করেছিল দ্বীপ .. দু-তিনঘন্টা প্রাকটিস করে,কি বলবে ঠিক করে কাঁপা কাঁপা বুকে ফোন করেছিল সৌমিলিকে .. , একটা মিষ্টি মতন কণ্ঠে আজকের মতোই উত্তর এসেছিল,” হ্যা! কে বলছেন ?” ..  আজ যেন সেই প্রথম দিনের সৌমিলি কে খুঁজে পেল..  দ্বীপ নিজেকে সামলে কাঁপা কাঁপা বলে উঠল, “হ্যালো! সৌমিলি ! ..আমার বড্ড ভুল…” দ্বীপের কথা না শেষ হতেই “বিপ!” করে আওয়াজ করে ফোনটা কেটে গেল …  ..

সৌমিলির ফোনটা হঠাৎ কেটে দেওয়ায় দ্বীপের বুকটা কেঁপে উঠল,” তাহলে কি সত্যি ও …….” সৌমিলিকে ছাড়া আগন্তুক শোচনীয় দিনগুলির কথা ভাবলে বুকটা হুহু করে উঠছে।
“নাহ! ও কিছুতেই ছেড়ে যেতে পারেনা আমায়!
” … সে জানে এখন এই নম্বর থেকে কল করা বৃথা, সৌমিলি আর ফোন ধরবে না ।
সে নিরাশ মনে অন্ধকারের রাস্তা ধরে ধীরে ধীরে হেটে বাড়ির দিকে যেতে লাগল ।
হাটতে হাটতে সৌমিলির কথা বড্ড মনে পড়ল, রাতের অন্ধকারটা যেন হঠাৎ ধুপ করে তার বুকে চাপা পড়ল, এই তো সেদিনই সৌমিলির হাত ধরে হাটছিল দ্বীপ,ময়দানের সবুজ ঘাসে তার পাশে বসেছিল, মেঘলা আকাশ ছিল, মাঝে মাঝে মৃদু-মন্দ হালকা বাতাস বয়ে যাচ্ছিল,হওয়ার দমকায় সৌমিলির ঘন কালো চুলগুলো উড়ছিল..একটু হেলান দিয়ে সৌমিলির কোলে  শুয়ে পড়েছিল দ্বীপ।

সৌমিলির আঙ্গুলগুলো তখন দ্বীপের অবিন্যস্ত চুলে বিলি কাটতে ব্যস্ত …।
হালকা হালকা বাতাস আর মেঘলা আকাশ আর ঘাসের সবুজতা নিয়ে এক ভিন্ন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছিল সেদিন, সৌমিলি একটু ঝুকে মাথা নিচু করে ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করেছিল, “এই ,তুই আমায় ছেড়ে কখনো যাবি নাতো ?” …
দ্বীপ ওর মুখটা আরো কাছে টেনে হেসে বলেছিল,”ধুর! পাগলি!” …  ..আর আজ সৌমিলি তাকে ছেড়ে চলে যাচ্ছে – এটা ভাবতেই বুকের ভিতর টা দুমড়ে-মুচড়ে উঠল ,চোখ ফেটে জল এল।
ছলছল চোখটা কব্জি দিয়ে মুছে নিজেই আত্মবিলাপ করল দ্বীপ ,”না কিছুতেই ওকে যেতে দেব না আমি,আমি কিভাবে থাকবো তাহলে ?”
… এই শুনশান রাস্তায় বড্ড এক লাগল দ্বীপের।
কথাগুলি এদিকওদিক বারি খেতে খেতে তার কাছেই ফিরে এল।এরকম একাকিত্ব সে কখনো অনুভব করেনি আগে।
………Breakup – Bangla Love Story………..

যখনই সৌমিলি রাগ করত, তখনও মনে হত ও সবসময় পাশে আছে, মুখ বেকিয়ে অন্য দিকে ফিরে আছে।
কিন্তু আজ সত্যি বড্ড এক লাগল,মনে হল খুব জরুরি একটা ট্রেন বেরিয়ে যাচ্ছে তার সামনে দিয়ে, আর সে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে আছে সেদিকে।
দ্বীপের দু-চোখ জলে ভরে গেল  বাড়ি ঢুকতেই মা শুধল,”কি রে?
কোথায় চিকিৎসা এতক্ষন?
আয় খেয়ে নিবি” , “আমার খিদে নেই” , বলে দ্বীপ সটান তার ঘরে এসে দরজা বন্ধ করে দিল ।তার মা অবাক চোখে শুধু বন্ধ দরজাটার পানে চেয়ে রইল।

খাটে চুপচাপ বসে আছে দ্বীপ, সামনে অনেক গিফট,গ্রিটিংস কার্ড ,লেটার আর বইয়ের পাতায় সযত্নে রাখা গোলাপ ফুলের জীবাশ্ম। আজ সৌমিলি কে বড্ড মনে পড়ছে তার,আজ মন জুড়ে শুধু সৌমিলি আর সৌমিলি ,নাহ!
আজ তার একবারও ফেসবুক,হোয়াটসআপ,Coc কিংবা Assignment এর কথা মনে পড়েনি, বড্ড তুচ্ছ লাগছে এসব, ঘেন্না লাগছে ,হয়তো সেরকম কেউই ব্যস্ত হয় না ,সব priority-এর খেল। সে আজ বুঝেছে সৌমিলি তার জীবনে কতটা জায়গা জুড়ে আছে, কতটা অবদান তার দ্বীপের জীবনে …সৌমিলির কাছে এসব পার্থিব জিনিসগুলো বড্ড তুচ্ছ লাগলো আজ .. পুরোনো কথাগুলো বড্ড মন কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে আজ।

সে এই পুরোনো স্মৃতির নিদর্শনের মধ্যে সৌমিলি কে আবার আকড়ে ধরতে চাইছে।
সামনে পরে থাকা একটু পুরোনো গ্রিটিংসকার্ড খুলে দেখল, সযত্নে গোটা গোটা করে লেখা,”তুই শুধু আমার, সারাজীবন শুধু আমারই থাকবি” …  সেই গতবারের ভ্যালেন্টাইনস ডে তে দিয়েছিল,পুরোনো গিফট কিংবা চিঠির শব্দগুলো থেকে সৌমিলির গন্ধ খুঁজতে লাগল সে …নিজেকে সংবরন করতে পারলে না, ডুকরে কেঁদে উঠল দ্বীপ , তার অশ্রুধারা গেল বেয়ে সৌমিলির পুরোনো একটি চিঠি ভেজাল।
“নাহ! আমি এভাবে থাকতে পারবনা, ওকে ছাড়া থাকা একেবারেই অসম্ভব” ..  ঘরের লাইট তা নিভিয়ে বিছানায় লুটিয়ে পড়ল সে, না আজ আর আলো ভালো লাগছে না , মনটা যে বড্ড অন্ধকার হয়ে আছে।
তার স্মার্টফোনটা নিয়ে সৌমিলিকে দু-তিনবার কল করল  , নাহ! সেই অসহ্য Busy tone।
“উফঃ প্লিজ আমায় আন ব্লক করনা , বড্ড এক লাগছে !
পারছিনা এভাবে .. তোকে ছাড়া ..” নিজ মনেই বলে উঠল দ্বীপ। কিন্তু গভীর কালো অন্ধকার পেরিয়ে সৌমিলি অবধি পৌছাল না কথাগুলি ,কোথায় যেন হারাল।

………Breakup – Bangla Love Story………..

সৌমিলির পুরোনো ছবি,Msg দেখে অন্ধকারে সৌমিলি কে হাতড়াতে লাগল দ্বীপ।
পুরোনো কথোপকথনগুলি আজ তার বুক চিড়ে যেন কষ্টের ফলক বসিয়ে দিচ্ছে,কেন এত কষ্ট হচ্ছে তার, ..  এই তো মাস দুয়েক আগের কথোপকথনের Msgগুলো দেখতে লাগল সে,  -এই কাল 9.17 ট্রেন ধরবো, সঙ্গে ছাতা,ব্যাগ,চশমা নিবি,ট্রেনের টিকিট টা তুই-ই কাটবি, আর জিন্স আর নীল শার্ট টা পরে আসবি।
-ওকে ম্যাডাম! বলছি ব্যাগ নিতেই হবে !
বড্ড গরম লাগে.. -হ্যা!
নিতে হবে ,নইলে ফাঁকা ফাঁকা লাগে যে বড় ।আর এই শীতেও গরম?
– হুম তুই সাথে থাকলে তো এমনিই Temperature বেড়ে যায়, So hot ..:-P -ধ্যাৎ!
অসভ্য একটা ! শুধু দুষ্টুমি ! দাড়াও কাল তোমার হচ্ছে !
..আর নিতে পারলো না দ্বীপ, চোখের অশ্রুর বাঁধ ভাঙল, টপটপ  করে কিছু নির্বাক অশ্রু বালিশ ভেজাল।
আজ তার মন খারাপের রাত ।

অনেক রাত, চোখ দিয়ে অনবরত জল পড়েই যাচ্ছে,
লাল লাল হয়ে ফুলে গেছে চোখ ,
তার বুকে বড্ড কষ্ট হচ্ছে আজ,যেন দুমড়ে মুচড়ে বেরিয়ে যেতে চাইছে ,
“আমি কিভাবে থাকব ওকে ছাড়া, এ স্মৃতির পাহাড় অতিক্রম করা যে অসম্ভব! নাহ আমি পারব না !

হঠাৎ তার খেয়াল পড়ল,নম্বর ব্লক করলেও Msg পাঠানো যায় ,এমনকি সৌমিলিও দেখতে পাবে সেই msg গুলো।
এরকম আগেও অনেকবার অভিমান ভাঙানোর সময় করেছে সে।ঝাপসা ঝাপসা চোখে সৌমিলি কে একের পর এক Msg করতে লাগল সে, যেন আজ রাতে সমস্ত মনের কথা উজাড় করে দেবে, কত যে না বলা কথা আজ তার স্মার্ট ফোনের উপর আঙুলের আঁকিবুকিতে ব্যক্ত হল কে জানে … ” দেখ! I’m Really extremely Sorry for Everything, জানি তোকে বড্ড অবহেলা করেছি, কিন্তু বিশ্বাস কর আজ আমি বুঝলাম তুই আমার জীবনে কি !
তোকে ছাড়া যে আমার এক মুহূর্তও থাকা দায় রে ,বড্ড কষ্ট পাচ্ছি , আমায় ছেড়ে যাস না প্লিজ, তোর সমস্ত অভিযোগ মিটিয়ে দেব, আগের মতো তোর প্রিয় দ্বীপ হয়ে উঠব আবার ,প্লিজ, I can’t live without you..যাসনা”  Msg গুলো টাইপ করার সাথে সাথে বড্ড কষ্ট হচ্ছিল তার, চোখ দিয়ে অনবরত জল পড়তে লাগল। আজ এত চোখের জল যে কোথা থেকে আসছে, কে বলেছে ছেলেরা কাঁদে না?
আসলে তা কেউ দেখতে পায়না, তারা নীরবে কাঁদে, নিভৃতে কাঁদে ,একাকী কাঁদে …  আবার কাঁপা কাঁপা আঙুলে আর ঝাপসা চোখে Msg করতে লাগল সে, “দেখ সোনা, আমি পারফেক্ট নই, প্রচুর ভুল করি, আগেও করেছি, ভবিষ্যতেও করব,আমাকে সবসময় সোয়েছিস,মানিয়ে নিয়েছিস, এখন কেন এরকম করছিস? আমি তো তোরই ,তাই না?

আমি তোকে ছাড়া পারবনা থাকতে, আমাকে একটা সুযোগ দে ..প্লিজ dont go .I need You badly ..আমার খুব শিক্ষে হয়েছে আজ, দয়া করে যাস না … তুই বল কে আমায় ঘুম থেকে ডেকে তুলবে রোজ ,কেই বা রোজ ঘুমের আগে গুড নাইট কিস দেবে?কে “গবেট” বলে ডাকবে, আমার স্পাইক করা চুল ঘেটে দেবে, কে গভীর রাতে চুপি চুপি আমার সাথে কথা বলবে ..কে আমার সাথে কারন অকারনে ঝগড়া করবে , আবার আদর করে বুকে টেনে নেবে ,আর .. ওই সেই হাত ধরে হাটা .. কে ধরবে বল?
আর আমাকে তোর বান্ধবী ভেবে কে এত এত PNPC করবে? আমার মন খারাপ করলে কে আমায় বাজে বাজে জোকস শুনিয়ে হাসানোর চেষ্টা করবে বল .. এত ভালোবাসা, আদর, Care, Affections .. আমি কোথায় পাবো বল ..  তুই তুই তুই!
তুই ছাড়া আমি কিচ্ছুই নই।
তুই ছাড়া আমি Incomplete, সেটা আজ realize করলাম, আমার সবকিছুতে তোকে চাই, সারাটা দিন তোকে নিয়েই মত্ত থাকতে চাই আগের মতো ..পৃথিবীতে শুধু একটাই সৌমিলি আছে আমার জন্যে।
Please come back honey .. I miss you .. ”  .. এরকম Msg এর বন্যা বয়ে চলল, আজ যেন সব মনের কথা উজাড় করে দেওয়ার দিন!

চোখের জলে ঝাপসা হয়ে যাওয়া চোখও বাঁধ সাধল অস্তির আঙ্গুলগুলোর দৌরাত্ম …  Msg এর আঁকিবুকি টানতে টানতে যে কখন ঘুমের দেশে পাড়ি দিয়েছিল ক্লান্ত অবসন্ন দ্বীপ… কে জানে।   সকাল ঠিক, 7.00টা।
ফোনের রিং এ গভীর ঘুমটা ভেঙে গেল দ্বীপের, সে অনেক কষ্ট করে ঘুমে কাতর চোখটা খুলে ফোনটা হাত বাড়িয়ে এনে দেখল , সৌমিলির ফোন!

তড়াক করে লাফিয়ে উঠল সে, বসে যেই কলটা রিসিভ করতেই সঙ্গে সঙ্গে ফোনটা কেটে গেল …  আবার বিষন্ন মনে বিছানায় লুটিয়ে পড়ল সে।
এটা তার অভ্যেস।
রোজ সকাল 7টায় কল করে জাগিয়ে দেয় দ্বীপ কে এলার্ম ক্লক সৌমিলি।
সঙ্গে সঙ্গে আবার MsgTone বেজে উঠল ,দ্বীপ তৎক্ষণাৎ Msgটা  ঝলমল চোখে দেখতে লাগল,  “ওঠো ওঠো, আর কত ঘুমাবে, না আজ আমার বাবুটা সত্যিকারের ঘুম ভেঙে উঠেছে ..হুম! অনেকদিন পর ”

হঠাৎ একটা মেসেজ টোনে ঘুম ভেঙে গেল দ্বীপের ।

কলেজ থেকে ফিরে ক্লান্ত চোখে ঘুমটা সবে জাকিয়ে এসেছিল, বিরক্তি মুখে আড়মোড়া ভাঙতে ভাঙতে অলস হাতে ফোনটা হাতে নিয়ে মেসেজটা দেখতেই একরকম লাফিয়ে উঠল সে।

সৌমিলির দীর্ঘ একটা মেসেজ, “আমি চলে যাচ্ছি তোর জীবন থেকে সারাজীবনের মতো, তুই খুব ব্যস্ত,আমার জন্যে একদম সময় নেই,অনেকবার বলেছিস শুধরবি, শুধরাসনি, নাহ!

আমি আর পারছিনা, থেকেও না থাকার মতো থেকে আমায় আর কষ্ট দিস না, প্লিজ আমায় আমার মতো থাকতে দে, তুই তোর মতো থাক,জানিস তো আমি প্রথমের দ্বীপ কে খুব মিস করি, কোথায় যে হারিয়ে গেল সে,অনেক মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছি,আর পারছিনা রে!

আমি সরে যাচ্ছি তোর জীবন থেকে,আমায় কোনো Msg বা Call করে কন্টাক্ট করার চেষ্টা করবি না!
গুড বাই ”  মেসেজটা পরেই ঘামতে শুরু করল দ্বীপ ।

মনটায় যেন কেউ পটাশিয়াম সায়ানাইড ছড়িয়ে দিল ,চারদিকে আধার দেখল সে,আলোয় ঝলমল ঘরটায় কেউ যেন হঠাৎ দুম করে সুইচ অফ করে দিল।
সে চিৎকার করে উঠল, “নাহ! 

কিছুতেই  না… ” এরকম ভয়ানক মেসেজ তো সৌমিলি কখনো করে না ,না রাগ অভিমানেও না ,ব্যাপারটা ঘোরতর সিরিয়াস মনে হল দ্বীপের ।
বুক টা হুহু করে উঠল ।

সৌমিলির নাম্বারে ডায়াল করল সে, ঘর্মাক্ত হাতে ফোনটা কানে ধরল,বুকটা বড্ড ধুকপুক করছে আজ, যেন এক আলোকবর্ষ পরে কল করছে সে। ফোনের অপরপ্রান্ত  থেকে Busy Tone শুনিয়ে ফোনটা কেটে গেল, আবার ফোন করল সে, নাহ!

সেই busy Tone ..!
এবার সৌমিলির আর একটা নম্বরে ডায়াল করল সে, সেখানেও Busy tone ..।

উফঃ! আচ্ছা জ্বালা তো .. বলে কপাল চাপড়াল দ্বীপ।
হঠাৎ খেয়াল পড়ল, যখনই রাগ-অভিমান বা খুনসুটি হতো,সৌমিলি তার নম্বর টা ব্লক করে দিত।

অনেক কষ্ট করে মানানোর পর আনব্লক করত সৌমিলি । সৌমিলির রাগটা বড্ড বেশী, কথায় কথায় রাগ করে সে,বড্ড অভিমানী.. কিন্তু দ্বীপ কে খুব ভালোবাসে, প্রচন্ড খেয়াল রাখে সে,সেই সকাল থেকে রাত,সারাদিন।

মাধ্যম সেই Text বা ফোনকল ।
দ্বীপ বুঝল ওর নম্বর টা ব্লক করে দিয়েছে সে ।

………Breakup – Bangla Love Story………..

দ্বীপের বুকের ব্যাথা টা গভীর হলো,বড্ড অসহায় লাগে যখন যখন সৌমিলি তাকে ব্লক করে দেয় ,এটাই তো একমাত্র মাধ্যম,এটা না থাকলে তো দেখাও পর্যন্ত করা যায় না , না না কিছুতেই না !

সৌমিলি কে কিছুতেই যেতে দেবে না সে, সৌমিলি কে ছাড়া তার একদিনও থাকা দায় ।
সকালের ঘুমভাঙ্গানো থেকে শুরু করে রাতে ঘুমপাড়ানো সবকিছুতেই সৌমিলি ।

প্রায় দুবছর হতে চলেছে তাদের সম্পর্কের,প্রথম দিকে দ্বীপের পুরো সময়টাই সৌমিলি পেত, তারপর ধীরে ধীরে যা হয় আর কি! ভালোবাসার ফ্যান্টাসি কেটে গেলে বাস্তবতার কষাঘাত এসে আছড়ে পরে, .. সবকিছু ধীরে ধীরে ম্রিয়মান হয়,সেই স্বপ্ন,আদর,ভালোবাসা, কল্পনাগুলোতে একঘেয়েমীর মরিচা পড়তে শুরু করে ।কিন্তু কিছু মানুষের মনে সেই প্রথমের ভালোবাসার মানুষটি বেঁচে থাকলেই হয় সমস্যা, সেই একঘেয়েমিতে জরাজীর্ণ মানুষটির মধ্যে কিছুতেই পুরাতন মানুষটিকে খুঁজে পায়না.. .. ট্রেনে করে রোজ রোজ জার্নি ,কলেজ-কাচারী,রোজ রোজ Assignments,ফেসবুক,হোয়াটসআপ, COC ইত্যাদির মধ্যে সৌমিলির জন্যে সময়টা কমে এসেছিল ঠিকই,তাই বলে …   ..  দ্বীপের কষ্টটা বেড়ে গেল ,সে দৃঢ় কণ্ঠে ঘোষণা করল,”নাহ! কিছুতেই না!

কিছুতেই যেতে দেব না ওকে”… সে ঘড়িতে চোখ বুলিয়ে দেখল ৮.৩০,এখনো মোড়ের মাথার দোকানটা খোলা আছে, সে চটজলদি উঠে জিনসের উপর একটা ফতুয়া গলিয়ে ছুটল।

মোড়ের মাথার মুদি দোকান সঙ্গে PCO/STD বুথ ।দ্বীপ সযত্নে  অস্থির আঙুলে সৌমিলির নম্বরটা ডায়াল করল, অনেকখন রিং হয়ে যাওয়ার পরও কেউ ধরলো না, দ্বীপের কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমেছে,বড্ড টেনশন হচ্ছে তার।

সে আবার সৌমিলির নম্বরটা ডায়াল করল,অনেক্ষন রিং হওয়ার পর একজন ফোনটা ধরল,শান্ত-ম্লান নারীকণ্ঠে,বলল ,”হ্যালো ! কে বলছেন?” ..  আজ সৌমিলির কন্ঠটা শুনে বড্ড মিষ্টি লাগল দ্বীপের,তার হৃদস্পন্দনের ধুকপুকোনিটা তীব্র হল, সেই পুরোনো দিনের কথা মনে পরল,তারা যখন ঘন্টার পর ঘন্টা ফোনে কথা বলে কাটাত,কথাই যেন শেষ হতো না .. আর আজ !

যেন একটা কর্তব্যের দায় সারা হয় ..   .. কেন আজ সেই প্রথম দিনের মতো অনুভব হচ্ছে তার, যখন তিন-চারমাস ফেসবুকে বন্ধুত্বের পর হঠাৎ সৌমিলির কাছে নম্বর চেয়েছিল সে ..।

সেই নম্বর পেয়ে বিশ্ব জয়ের মতো আনন্দ করেছিল দ্বীপ .. দু-তিনঘন্টা প্রাকটিস করে,কি বলবে ঠিক করে কাঁপা কাঁপা বুকে ফোন করেছিল সৌমিলিকে .. , একটা মিষ্টি মতন কণ্ঠে আজকের মতোই উত্তর এসেছিল,” হ্যা! কে বলছেন ?” ..  আজ যেন সেই প্রথম দিনের সৌমিলি কে খুঁজে পেল..  দ্বীপ নিজেকে সামলে কাঁপা কাঁপা বলে উঠল, “হ্যালো! সৌমিলি ! ..আমার বড্ড ভুল…” দ্বীপের কথা না শেষ হতেই “বিপ!” করে আওয়াজ করে ফোনটা কেটে গেল …  ..

সৌমিলির ফোনটা হঠাৎ কেটে দেওয়ায় দ্বীপের বুকটা কেঁপে উঠল,” তাহলে কি সত্যি ও …….” সৌমিলিকে ছাড়া আগন্তুক শোচনীয় দিনগুলির কথা ভাবলে বুকটা হুহু করে উঠছে।
“নাহ! ও কিছুতেই ছেড়ে যেতে পারেনা আমায়!
” … সে জানে এখন এই নম্বর থেকে কল করা বৃথা, সৌমিলি আর ফোন ধরবে না ।
সে নিরাশ মনে অন্ধকারের রাস্তা ধরে ধীরে ধীরে হেটে বাড়ির দিকে যেতে লাগল ।
হাটতে হাটতে সৌমিলির কথা বড্ড মনে পড়ল, রাতের অন্ধকারটা যেন হঠাৎ ধুপ করে তার বুকে চাপা পড়ল, এই তো সেদিনই সৌমিলির হাত ধরে হাটছিল দ্বীপ,ময়দানের সবুজ ঘাসে তার পাশে বসেছিল, মেঘলা আকাশ ছিল, মাঝে মাঝে মৃদু-মন্দ হালকা বাতাস বয়ে যাচ্ছিল,হওয়ার দমকায় সৌমিলির ঘন কালো চুলগুলো উড়ছিল..একটু হেলান দিয়ে সৌমিলির কোলে  শুয়ে পড়েছিল দ্বীপ।

সৌমিলির আঙ্গুলগুলো তখন দ্বীপের অবিন্যস্ত চুলে বিলি কাটতে ব্যস্ত …।
হালকা হালকা বাতাস আর মেঘলা আকাশ আর ঘাসের সবুজতা নিয়ে এক ভিন্ন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছিল সেদিন, সৌমিলি একটু ঝুকে মাথা নিচু করে ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করেছিল, “এই ,তুই আমায় ছেড়ে কখনো যাবি নাতো ?” …
দ্বীপ ওর মুখটা আরো কাছে টেনে হেসে বলেছিল,”ধুর! পাগলি!” …  ..আর আজ সৌমিলি তাকে ছেড়ে চলে যাচ্ছে – এটা ভাবতেই বুকের ভিতর টা দুমড়ে-মুচড়ে উঠল ,চোখ ফেটে জল এল।
ছলছল চোখটা কব্জি দিয়ে মুছে নিজেই আত্মবিলাপ করল দ্বীপ ,”না কিছুতেই ওকে যেতে দেব না আমি,আমি কিভাবে থাকবো তাহলে ?”
… এই শুনশান রাস্তায় বড্ড এক লাগল দ্বীপের।
কথাগুলি এদিকওদিক বারি খেতে খেতে তার কাছেই ফিরে এল।এরকম একাকিত্ব সে কখনো অনুভব করেনি আগে।
………Breakup – Bangla Love Story………..

যখনই সৌমিলি রাগ করত, তখনও মনে হত ও সবসময় পাশে আছে, মুখ বেকিয়ে অন্য দিকে ফিরে আছে।
কিন্তু আজ সত্যি বড্ড এক লাগল,মনে হল খুব জরুরি একটা ট্রেন বেরিয়ে যাচ্ছে তার সামনে দিয়ে, আর সে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে আছে সেদিকে।
দ্বীপের দু-চোখ জলে ভরে গেল  বাড়ি ঢুকতেই মা শুধল,”কি রে?
কোথায় চিকিৎসা এতক্ষন?
আয় খেয়ে নিবি”   “আমার খিদে নেই”  বলে দ্বীপ সটান তার ঘরে এসে দরজা বন্ধ করে দিল ।তার মা অবাক চোখে শুধু বন্ধ দরজাটার পানে চেয়ে রইল।

খাটে চুপচাপ বসে আছে দ্বীপ, সামনে অনেক গিফট,গ্রিটিংস কার্ড ,লেটার আর বইয়ের পাতায় সযত্নে রাখা গোলাপ ফুলের জীবাশ্ম। আজ সৌমিলি কে বড্ড মনে পড়ছে তার,আজ মন জুড়ে শুধু সৌমিলি আর সৌমিলি ,নাহ!
আজ তার একবারও ফেসবুক,হোয়াটসআপ,Coc কিংবা Assignment এর কথা মনে পড়েনি, বড্ড তুচ্ছ লাগছে এসব, ঘেন্না লাগছে ,হয়তো সেরকম কেউই ব্যস্ত হয় না ,সব priority-এর খেল। সে আজ বুঝেছে সৌমিলি তার জীবনে কতটা জায়গা জুড়ে আছে, কতটা অবদান তার দ্বীপের জীবনে …সৌমিলির কাছে এসব পার্থিব জিনিসগুলো বড্ড তুচ্ছ লাগলো আজ .. পুরোনো কথাগুলো বড্ড মন কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে আজ।

সে এই পুরোনো স্মৃতির নিদর্শনের মধ্যে সৌমিলি কে আবার আকড়ে ধরতে চাইছে।
সামনে পরে থাকা একটু পুরোনো গ্রিটিংসকার্ড খুলে দেখল, সযত্নে গোটা গোটা করে লেখা,”তুই শুধু আমার, সারাজীবন শুধু আমারই থাকবি” …  সেই গতবারের ভ্যালেন্টাইনস ডে তে দিয়েছিল,পুরোনো গিফট কিংবা চিঠির শব্দগুলো থেকে সৌমিলির গন্ধ খুঁজতে লাগল সে …নিজেকে সংবরন করতে পারলে না, ডুকরে কেঁদে উঠল দ্বীপ , তার অশ্রুধারা গেল বেয়ে সৌমিলির পুরোনো একটি চিঠি ভেজাল।
“নাহ! আমি এভাবে থাকতে পারবনা, ওকে ছাড়া থাকা একেবারেই অসম্ভব” ..  ঘরের লাইট তা নিভিয়ে বিছানায় লুটিয়ে পড়ল সে, না আজ আর আলো ভালো লাগছে না , মনটা যে বড্ড অন্ধকার হয়ে আছে।
তার স্মার্টফোনটা নিয়ে সৌমিলিকে দু-তিনবার কল করল  , নাহ! সেই অসহ্য Busy tone।
“উফঃ প্লিজ আমায় আন ব্লক করনা , বড্ড এক লাগছে !

পারছিনা এভাবে .. তোকে ছাড়া ..” নিজ মনেই বলে উঠল দ্বীপ। কিন্তু গভীর কালো অন্ধকার পেরিয়ে সৌমিলি অবধি পৌছাল না কথাগুলি ,কোথায় যেন হারাল।
সৌমিলির পুরোনো ছবি,Msg দেখে অন্ধকারে সৌমিলি কে হাতড়াতে লাগল দ্বীপ।
পুরোনো কথোপকথনগুলি আজ তার বুক চিড়ে যেন কষ্টের ফলক বসিয়ে দিচ্ছে,কেন এত কষ্ট হচ্ছে তার, ..  এই তো মাস দুয়েক আগের কথোপকথনের Msgগুলো দেখতে লাগল সে,  -এই কাল 9.17 ট্রেন ধরবো, সঙ্গে ছাতা,ব্যাগ,চশমা নিবি,ট্রেনের টিকিট টা তুই-ই কাটবি, আর জিন্স আর নীল শার্ট টা পরে আসবি।
-ওকে ম্যাডাম! বলছি ব্যাগ নিতেই হবে !
বড্ড গরম লাগে.. -হ্যা!
নিতে হবে ,নইলে ফাঁকা ফাঁকা লাগে যে বড় ।আর এই শীতেও গরম?
– হুম তুই সাথে থাকলে তো এমনিই Temperature বেড়ে যায়, So hot 😛 -ধ্যাৎ!
অসভ্য একটা ! শুধু দুষ্টুমি ! দাড়াও কাল তোমার হচ্ছে !
..আর নিতে পারলো না দ্বীপ, চোখের অশ্রুর বাঁধ ভাঙল, টপটপ  করে কিছু নির্বাক অশ্রু বালিশ ভেজাল।
আজ তার মন খারাপের রাত ।

অনেক রাত, চোখ দিয়ে অনবরত জল পড়েই যাচ্ছে,
লাল লাল হয়ে ফুলে গেছে চোখ ,
তার বুকে বড্ড কষ্ট হচ্ছে আজ,যেন দুমড়ে মুচড়ে বেরিয়ে যেতে চাইছে ,
“আমি কিভাবে থাকব ওকে ছাড়া, এ স্মৃতির পাহাড় অতিক্রম করা যে অসম্ভব! নাহ আমি পারব না !

হঠাৎ তার খেয়াল পড়ল,নম্বর ব্লক করলেও Msg পাঠানো যায় ,এমনকি সৌমিলিও দেখতে পাবে সেই msg গুলো।
এরকম আগেও অনেকবার অভিমান ভাঙানোর সময় করেছে সে।ঝাপসা ঝাপসা চোখে সৌমিলি কে একের পর এক Msg করতে লাগল সে, যেন আজ রাতে সমস্ত মনের কথা উজাড় করে দেবে, কত যে না বলা কথা আজ তার স্মার্ট ফোনের উপর আঙুলের আঁকিবুকিতে ব্যক্ত হল কে জানে … ” দেখ! I’m Really extremely Sorry for Everything, জানি তোকে বড্ড অবহেলা করেছি, কিন্তু বিশ্বাস কর আজ আমি বুঝলাম তুই আমার জীবনে কি !
তোকে ছাড়া যে আমার এক মুহূর্তও থাকা দায় রে ,বড্ড কষ্ট পাচ্ছি , আমায় ছেড়ে যাস না প্লিজ, তোর সমস্ত অভিযোগ মিটিয়ে দেব, আগের মতো তোর প্রিয় দ্বীপ হয়ে উঠব আবার ,প্লিজ, I can’t live without you..যাসনা” …..   .. Msg গুলো টাইপ করার সাথে সাথে বড্ড কষ্ট হচ্ছিল তার, চোখ দিয়ে অনবরত জল পড়তে লাগল। আজ এত চোখের জল যে কোথা থেকে আসছে, কে বলেছে ছেলেরা কাঁদে না?
আসলে তা কেউ দেখতে পায়না, তারা নীরবে কাঁদে, নিভৃতে কাঁদে ,একাকী কাঁদে …  আবার কাঁপা কাঁপা আঙুলে আর ঝাপসা চোখে Msg করতে লাগল সে, “দেখ সোনা, আমি পারফেক্ট নই, প্রচুর ভুল করি, আগেও করেছি, ভবিষ্যতেও করব,আমাকে সবসময় সোয়েছিস,মানিয়ে নিয়েছিস, এখন কেন এরকম করছিস? আমি তো তোরই ,তাই না?
………Breakup – Bangla Love Story………..

আমি তোকে ছাড়া পারবনা থাকতে, আমাকে একটা সুযোগ দে ..প্লিজ dont go .I need You badly ..আমার খুব শিক্ষে হয়েছে আজ, দয়া করে যাস না … তুই বল কে আমায় ঘুম থেকে ডেকে তুলবে রোজ ,কেই বা রোজ ঘুমের আগে গুড নাইট কিস দেবে?কে “গবেট” বলে ডাকবে, আমার স্পাইক করা চুল ঘেটে দেবে, কে গভীর রাতে চুপি চুপি আমার সাথে কথা বলবে ..কে আমার সাথে কারন অকারনে ঝগড়া করবে , আবার আদর করে বুকে টেনে নেবে ,আর .. ওই সেই হাত ধরে হাটা .. কে ধরবে বল?
আর আমাকে তোর বান্ধবী ভেবে কে এত এত PNPC করবে? আমার মন খারাপ করলে কে আমায় বাজে বাজে জোকস শুনিয়ে হাসানোর চেষ্টা করবে বল .. এত ভালোবাসা, আদর, Care, Affections .. আমি কোথায় পাবো বল ..  তুই তুই তুই!
তুই ছাড়া আমি কিচ্ছুই নই।
তুই ছাড়া আমি Incomplete, সেটা আজ realize করলাম, আমার সবকিছুতে তোকে চাই, সারাটা দিন তোকে নিয়েই মত্ত থাকতে চাই আগের মতো ..পৃথিবীতে শুধু একটাই সৌমিলি আছে আমার জন্যে।
Please come back honey .. I miss you .. ”  .. এরকম Msg এর বন্যা বয়ে চলল, আজ যেন সব মনের কথা উজাড় করে দেওয়ার দিন!

চোখের জলে ঝাপসা হয়ে যাওয়া চোখও বাঁধ সাধল অস্তির আঙ্গুলগুলোর দৌরাত্ম …  Msg এর আঁকিবুকি টানতে টানতে যে কখন ঘুমের দেশে পাড়ি দিয়েছিল ক্লান্ত অবসন্ন দ্বীপ… কে জানে।   সকাল ঠিক, 7.00টা।
ফোনের রিং এ গভীর ঘুমটা ভেঙে গেল দ্বীপের, সে অনেক কষ্ট করে ঘুমে কাতর চোখটা খুলে ফোনটা হাত বাড়িয়ে এনে দেখল , সৌমিলির ফোন!

তড়াক করে লাফিয়ে উঠল সে, বসে যেই কলটা রিসিভ করতেই সঙ্গে সঙ্গে ফোনটা কেটে গেল …  আবার বিষন্ন মনে বিছানায় লুটিয়ে পড়ল সে।
এটা তার অভ্যেস।
রোজ সকাল 7টায় কল করে জাগিয়ে দেয় দ্বীপ কে এলার্ম ক্লক সৌমিলি।
সঙ্গে সঙ্গে আবার MsgTone বেজে উঠল ,দ্বীপ তৎক্ষণাৎ Msgটা  ঝলমল চোখে দেখতে লাগল,  “ওঠো ওঠো, আর কত ঘুমাবে, না আজ আমার বাবুটা সত্যিকারের ঘুম ভেঙে উঠেছে ..হুম! অনেকদিন পর ”
………Breakup – Bangla Love Story………..

আমাদের আরো গল্প:

কর্পোরেট ভালোবাসা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *