Cholonamoye image

Cholonamoyee – ছলনাময়ী

Posted by

আজ ০৬/১২/২০১৯ইং তারিখ।
গত বছর এই দিনে ছেলেটা আমাকে তিন কবুল পড়ে নিজের স্ত্রী হিসেবে মেনে নিয়েছিলো।
দুজন দুজন কে স্বামী-স্ত্রী মেনে নিয়েছিলাম মনে প্রাণে।

কিন্তু কথায় আছেনা, আমরা যা চাই তা পাইনা।আবার কখনো কখনো পেয়েও হারিয়ে ফেলি।
হয়তো আমাদের সাথে তাই ই হয়েছে।
আজ আমরা দুজন দু প্রান্তে।
আমরা সামনে থেকে কেউ কাউকে আজো ছুঁয়ে দেখিনি।কিন্তু অনুভবে আমি তাকে ছুঁয়ে গেছি বহুবার।

আমি ঘুমোলে ও আমার কপোল ছুঁয়ে যায়।
চোখ বন্ধ করলে ওর হাসি ভরা মুখটা আমার চোখের সামনে এসে হাজির হয়।
অনুভবে ওকে আমি জড়িয়ে ধরেছি কত শত বার তার হিসেব নেই।
ওর বুকে মাথা রেখে কেঁদেছি কত শত দিন তার ইয়ত্তা নেই।

কত স্বপ্ন কত ইচ্ছে আমাদের।
কত রাত কেঁদেছি দুজন ফোনের ও প্রান্তে এ প্রান্তে।কত শত বার বলা হয়ে গেছে ভালবাসি।তবু যেন মিটেনা পিপাশা।

কিন্তু আচমকা এক দমকা বাতাস সব এলোমেলো করে দিয়ে গেলো।
বাবা মায়ের ইচ্ছের মান রাখতে ওকে ছাড়তে হলো আমার।
আরো কিছু কাহিনীও আছে বটে।

আমি ওকে ধরে রাখতে পারলাম না।
একটাই কারণ,
আমাদের তিন কবুলের তো আল্লাহ্ ছাড়া কেউ সাক্ষী ছিলোনা।
লিখিত কোন দলিলও নেই।
কিভাবে ধরে রাখবো আমি ওকে?
সমাজ যে মানবেনা।

ও আমাকে ভালবাসে,আমি ওকে ভালবাসি।
ও আমাকে আপন করে চায়,
আমিও ওকে চাই।
কিন্তু তবুও আমরা আজ আলাদা।

বাবা মা জন্ম দিয়েছেন,তাদের মুখে চুনকালি মাখবি?
কেমন মেয়ে তুই?
তোর মত মেয়ে থাকার চেয়ে,নিঃসন্তান হওয়া অনেক ভালো।
এই দিন দেখার জন্য পেটে ধরেছিলো তোর মা?
আমাদের মান সম্মান নষ্ট হলে তোর বাবা স্ট্রোক করবে।
বাবা মায়ের মৃত্যুর জন্য তুই দায়ি থাকবি।

মা বাবাকে কষ্ট দিয়ে কেউ কোন দিন সুখী হতে পারেনা।
মা বাবাকে কষ্ট দিলে আল্লাহ্ও মাফ করেন না।

শুধু মাত্র এই কথা গুলোর কারণে,আর
মা বাবা জন্ম দিয়েছেন বলে শত শত মেয়েরা তাদের ভালবাসার মানুষ এর কাছে হয়ে যায় বেঈমান,ছলনাময়ী।
কিন্তু ওদের ভেতরের খবর কেউ জানেনা।
মেয়ে গুলো নিঃশব্দে ভালবাসার মানুষটার চোখে খারাপ হয়ে চলে আসে।
যাতে ভালবাসার মানুষটা অপর প্রান্ত থেকে ওকে ঘৃণা করে অন্য কাউকে নিয়ে সুন্দর ভাবে জীবন কাটাতে পারে।
আদৌ কি ওরা পারে এটা?
কি জানি,হয়তো পারে।
নয়তো প্রিয়তমার কথা মনে করে সবার আড়ালে কখনো কখনো চোখের জল মোছে।

আবার কিছু মেয়ে তার ভালবাসার মানুষটার সুখের জন্য নিজের খুশি বিসর্জন দেয়।
প্রিয় মানুষটার ইচ্ছে পূরণের জন্য নিজের ইচ্ছের মৃত্যু ঘটিয়ে প্রতারক নামক উপাধি নিয়ে চলে আসে।

রাতের অন্ধকারে সবাই যখন ঘুমিয়ে পড়ে,
বুকে বালিশ জাপটে ধরে এক হাতে মুখ চেপে চিৎকার করে কাঁদতে থাকে।
কিন্তু কেউ শোনেনা সে কান্না।

পৃথিবী বড়ই নিষ্ঠুর।তার চেয়ে বড় নিষ্ঠুর এই পৃথিবীর মানুষ গুলো।
আর খুব ভালো অভিনয় শিল্পীও বটে।
বুকে এক আকাশ কষ্ট লুকিয়ে রেখে জনসম্মুখে খুব করে হাসতে পারে।

জানি,তুমি আমার এ লিখা পড়বেনা কোন দিন।দেখবেওনা হয়তো।
কিন্তু একটা সত্যি কথা কি জানো?তোমার ভালবাসার মানুষটা বেঈমান না, ছলনাময়ী না।
আমার ভালবাসায় বিন্দু পরিমাণ মিথ্যের ছিটেফোঁটা নেই।
আমি তোমাকে তখনকার থেকেও বেশি ভালবাসি,যতটা এক বছর আগে বাসতাম।
বলতে গেলে এখন আমি তোমায় আগের চেয়েও শত গুণ বেশি ভালবাসি।
এমন একটা দিন নেই আমি না কাঁদি।
বিশ্বাস করো,আমি একটা রাতও ঠিক মত ঘুমোতে পারিনা।

আমি আজ মা বাবার বাধ্য সন্তান হতে গিয়ে তোমার কাছে ছলনাময়ী হয়ে গেলাম।
কিন্তু বিশ্বাস করো,আজো মোনাজাতে আমি তোমার জন্য দোয়া করি।
তোমার মুখটাই চোখের সামনে ভেসে ওঠে।

সৃষ্টিকর্তার কাছে আমি খুব করে চেয়ে রেখেছি,
তিনি ওই জন্মে অবশ্যই তোমাকে আমার করে দিবেন।
শুধুই আমার করে দিবেন।
এ জন্মে না হয় তুমি অন্য কারো গর্ভের সন্তানেরই বাবা হও।

ভালোবাসি,
খুব ভালোবাসি।
ভালো থেকো আমার ভালবাসা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *